বিয়েতে নারাজ, তবুও সন্তানের মা: একতার জন্য ন’গ্নতায় বাধ্য হন অ’ভিনেতারা

জনপোষণ বিতর্কে যে সব বলিউডি তারকা এখন আমজনতার অ’পছন্দের তালিকার শীর্ষে, একতা কপূর তাঁদের মধ্যে অন্যতম।

বলিউডে আরও কয়েক জন তারকার সঙ্গে তাঁর নামেও দায়ের করা হয়েছে মা’মলা। তিনি নিজে কিন্তু তারকার মে’য়ে হয়েও কোনও দিন নায়িকা হওয়ার দৌড়ে নাম লেখাননি।

জিতেন্দ্র এবং তাঁর স্ত্রী’ শোভা কপূরের মে’য়ে একতার জন্ম ১৯৭৫ সালের ৭ জুন। বম্বে স্কটিশ স্কুলের পরে তাঁর উচ্চশিক্ষা মিঠিভাই কলেজ থেকে।

স্কুলজীবনেই নিজের লক্ষ্য ঠিক করে নিয়েছিলেন একতা। ইনটার্নশিপ শুরু করেছিলেন পরিচালক কৈলাস সুরেন্দ্রনাথের কাছে।

দীর্ঘ দিন ধরে চলেছিল তাঁর শিক্ষানবিশ পর্ব। এর পর বাবার পরাম’র্শ ও অর্থসাহায্যে তাঁর বলিউডে প্রযোজনায় হাতেখড়ি। সেটা নব্বইয়ের দশকের শুরুর কথা। শুরু হল একতার সংস্থা বালাজি টেলিফিল্মস লিমিটেডের পথ চলা।

ছোট পর্দায় কার্যত নতুন যুগের সূত্রপাত হয়েছিল তাঁর হাত ধরে। মেগা ধারাবাহিকের সুবাদে দর্শকদের বৈঠকখানায় একচ্ছত্র আধিপত্য একতার। সংসারের খুঁটিনাটিকে তিনি উপজীব্য করেছিলেন নিজের সিরিয়ালের। সেটাই হয়ে ওঠে তাঁর তুরুপের তাস।

‘হম পানচ’, ‘কিঁউকি সা’স ভি কভি বহু থি’, ‘কহানি ঘর ঘর কি’, ‘কহিঁ কিসি রোজ’, ‘কসৌটি জিন্দগি কে’, ‘কসম সে’, ‘কহিঁ তো হোগা’, ‘কুমকুম ভাগ্য’, ‘কসম তেরে প্যায়ার কি’-সহ অসংখ্য ধারাবাহিকের জো’রে টেলিভিশন রাজপাট এসেছিল একতার অধীনে।

ছোট পর্দার পাশাপাশি একতা পা রেখেছিলেন বড় পর্দাতেও। ‘কিঁউ কি ম্যায়ঁ ঝুট নেহি বোলতা’, ‘কুছ তো হ্যায়’, ‘কৃষ্ণা কটেজ’, ‘ক্যয়া কুল হ্যায় হম’— পর পর মুক্তি পায় একতার বেশ কিছু ছবি। তবে ছবির প্রযোজক হিসেবে প্রথম দিকে সে রকম সাফল্য পাননি একতা।

তাঁর সংস্থার আরও একটি আইকনিক ধারাবাহিক ছিল ‘পবিত্র রিশতা’। এই ধারাবাহিক দিয়ে নিজের কেরিয়ার শুরু করেছিলেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত। ধারাবাহিকের শুটিং সেটেই তাঁর সঙ্গে আলাপ অঙ্কিতা লোখন্ডের।

‘কাই পো চে’ ছবিতে অ’ভিনয় করবেন বলে মাঝপথে ধারাবাহিকের ইউনিট ছেড়ে বেরিয়ে যান সুশান্ত। শোনা যায়, সে সময়েও একতা কোনও বিরূপ আচরণ করেননি। পাশে ছিলেন সুশান্তের।

শুধু সুশান্তই নন। একতার হাত ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে পরিচয় পেয়েছেন বিদ্যা বালন, প্রাচী দেশাই, রাম কপূর, রাজীব খাণ্ডেলওয়াল, রনিত রায়ের মতো অ’ভিনেতা। একতার দেওয়া মঞ্চ কাজে লেগেছিল এঁদের প্রত্যেকের ক্ষেত্রে।

তবে কুশীলবদের সঙ্গে তাঁর স’ম্পর্ক যে সব সময় মসৃণ ছিল, তা নয়। রাজীব খান্ডেলওয়ালের সঙ্গে তাঁর বিবাদ প্রকাশ্যে চলে এসেছিল। রাজীব বলেছিলেন, সাফল্যের জন্য তাঁর একতার সাহায্য দরকার নেই।

দ্বন্দ্ব ছিল স্মৃ’তি ই’রানির সঙ্গেও। এক সময়ের বন্ধুত্ব পাল্টে গিয়েছিল তিক্ততায়। ফলে স্মৃ’তি ‘কিঁউ কি সা’স ভি কভি বহু থি’-র ইউনিট ছেড়ে বেরিয়ে যান। তাঁর জায়গায় একতা নেন গৌতমী কপূরকে। কিন্তু সিরিয়ালের টিআরপি হু হু করে পড়ে যায়।

১৩০টির বেশি ধারাবাহিক প্রযোজনা করেছে একতার সংস্থা। প্রযোজনা করেছে ‘লভ সেক্স অউর ধোখা’, ‘দ্য ডার্টি পিকচার’, ‘লুটেরা’, ‘এক ভিলেন’, ‘উড়তা পঞ্জাব’, ‘হাফ গার্লফ্রেন্ড’, ‘লায়লা মজনু’, ‘জাজমেন্টাল হ্যায় ক্যয়া’, ‘ড্রিম গার্ল’-এর মতো ছবি। একটু দেরিতে হলেও সিরিয়ালের মতো সিনেমাতেও বাজিমাত করে বালাজি টেলিফিল্মস। ওয়েব সিরিজেও একতার সংস্থা অগ্রণী।

কৃতিত্বের স্বীকৃতি স্বরূপ বহু পুরস্কার পেয়েছেন। চলতি বছরেই পেয়েছেন পদ্মশ্রী সম্মান। খ্যাতির পাশাপাশি বিতর্কও সঙ্গী হয়েছে বার বার। তাঁর সংস্থার নুডিটি শর্ত নিয়ে আ’পত্তি তুলেছেন কুশীলবরা। এই শর্তের ফলে অন্তরঙ্গ দৃশ্যে অ’ভিনয় করতে এবং সব ধরনের সংলাপ বলতে বাধ্য থাকেন অ’ভিনেতারা।

ব্যক্তিগত জীবনে একতা সমালোচিত হন তাঁর পোশাক ও সাজের ধরন নিয়েও। বলা হয়, তিনি যা পোশাক পরেন, তাতে তাঁকে মানায় না। পাশ্চাত্য পোশাকের পাশাপাশি তাঁর শখ আছে নিত্যনতুন গাড়িরও। বিএমডব্লু, ফোর্ড, জাগুয়ার, মা’র্সিডিসের মতো গাড়ি আছে তাঁর সংগ্রহে।

উচ্চতা, অন্ধকার আর হেলিকপ্টার নিয়ে আতঙ্কে থাকা একতা সংখ্যাতত্ত্ব ও জ্যোতিষে বিশ্বা’স করেন। মনে করেন ইংরেজির ‘কে’ অক্ষর এবং ৩, ৬ ও ৯ তাঁর জন্য শুভ। পশুপ্রে’মী একতা রাস্তার বিড়াল, কুকুরদের জন্য কাজ করতে ভালবাসেন। অনুষ্ঠানে তাঁকে বিশেষ দেখা না গেলেও পেজ থ্রি পার্টিতে একতা নিয়মিত মুখ।

টেলিভিশন সম্রাজ্ঞী একতার নিজের পছন্দের অ’ভিনেতা হলেন হৃতিক রোশন এবং শাহরুখ-সলমন-আমির। নায়িকাদের মধ্যে পছন্দ প্রিয়ঙ্কা চোপড়া, করিনা কপূর এবং সাক্ষী তনওয়ার। অবিবাহিত একতা তাঁর ছে’লে রাভির সিঙ্গল মাদার। ২০১৯-এ সারোগেসির সাহায্যে মা হয়েছেন তিনি।

জিতেন্দ্রর মতো একতাও এখন বলিউডের প্রতিষ্ঠান। তবে তিনিও নাকি শেষ মুহূর্তে সুশান্ত সিংহ রাজপুতের এগিয়ে চলার পথে অন্তরায় হয়ে ওঠেন বলে অ’ভিযোগ। এই প্রসঙ্গে একতার বক্তব্য, ‘সুশি’-র মৃ’ত্যুতে তিনি ম’র্মাহত। তবে তিনি আশাবাদী, র’হস্য ও অ’ভিযোগের চাপানউতোর পেরিয়ে সত্য এক দিন প্রকাশিত হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*